BDExpress

বিশ্বকাপ পর্যন্ত রায়াডুই চারে, বলছেন কোহলি


এই সময়: কেরালার ঐতিহ্যের নাচ, ড্রামসের তালে তিরুবনন্তপুরমে পা বিরাট কোহলি ও জেসন হোল্ডারের টিমের। সঙ্গে আবার হোটেলে ঢোকার মুখে ক্রিকেটারদের হাতে তুলে দেওয়া হল কেরালার ট্রেডমার্ক সুস্বাদু ডাব। সেই ডাবের জলে গলা ভিজিয়ে বিরাট কোহলি কতটা তৃপ্তি পেলেন জানা নেই। কিন্তু ব্যাটিং স্লটের চার নম্বর জায়গায় অম্বাতি রায়াডু যে ক্যাপ্টেন কোহলিকে তৃপ্ত করেছেন, সে কথা বলে দেওয়াই যায়।

মুম্বইয়ে চতুর্থ ওয়ান ডে-তে রায়াডুর সেঞ্চুরি নিয়ে এতটাই উচ্ছ্বসিত বিরাট, যে বলে দিয়েছেন, 'রায়াডুকে আমরা সুযোগ দিয়েছিলাম। সেটা ও খুব ভালো ভাবেই ব্যবহার করছে। এখন আমাদের কাজ হল, রায়াডুকে ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত এই জায়গাটায় খেলিয়ে আত্মবিশ্বাস জুগিয়ে যাওয়া।' এতেই শেষ নয়। রায়াডুর প্রশংসায় পঞ্চমুখ বিরাটের সংযোজন, 'রায়াডুর বড় গুণ হল, ম্যাচের পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে পারে ও। সোজা কথায়, ওর মতো এক জন বুদ্ধিমান ব্যাটসম্যানকে চার নম্বরে পেয়ে আমরা খুব খুশি।'

রায়াড়ুকে নিয়ে নিজের উচ্ছ্বাস লুকোননি রোহিত শর্মাও। যাঁরা রায়াডুকে চার নম্বরে খেলানো নিয়ে ভ্রু কুঁচকেছিলেন তাঁদের উদ্দেশে রোহিতের বক্তব্য, 'আশা করি, বিশ্বকাপ পর্যন্ত কেউ আর চার নম্বর জায়গাটা নিয়ে প্রশ্ন তুলবেন না। আশা করি, রায়াডু চার নম্বরের রহস্যটা শেষ করেছে।' ম্যাচ জেতা নিয়ে সংযোজন, 'রায়াডু চাপটা খুব ভালো নিতে পারে। নিলও। রায়াডু আমার সঙ্গে একটা ভালো পাটর্নারশিপ তৈরি করল। প্রথম ৫০ রান পর্যন্ত ধরে খেলছিল। তার পর নিজের মতো শট নিতে শুরু করে। রায়াডু যে ইনিংসটা খেলল, সেটা খেলার যে ওর ক্ষমতা আছে, তা আমরা অনেক দিন থেকেই জানি।'

একা রায়াডুই নন, মুম্বইয়ে পুরো টিমের পারফরম্যান্সেই খুশি বিরাট। ১-২ পিছিয়ে পড়ে দুর্দান্ত ভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বিরাটের ভারত। টিমের ক্যাপ্টেনের কথায়, 'আমরা সব বিভাগেই ভালো করেছি। সত্যি বলতে আমাদের সব বিভাগেই প্রথম দিকের ম্যাচগুলোয় একটু সমস্যা হচ্ছিল। কিন্তু এখন আমরা আবার ছন্দ ফিরে পেয়েছি।' বলার সময় আত্মবিশ্বাস ফুটে ওঠেছে বিরাটের গলায়, 'আমাদের টিম ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য পরিচিত। মুম্বইয়ে জয়, সেটারই আর একটা উদাহরণ।' আলাদা করে নবাগত বাঁ হাতি পেসার খলিল আহমেদের প্রশংসাও করেছেন। বিরাটের সাফ কথা, 'খলিল খুব প্রতিভাবান বোলার। বলটা একেবারে ঠিক এরিয়ায় ফেলতে জানে। একই ভাবে দু'দিকেই সুইং করানোর ক্ষমতা আছে।'

বিশ্বকাপের প্রস্তুতির কথা মাথায় রেখে চলতি সিরিজে দু'জনের উপর বিনিয়োগ করেছে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। প্রথমত চার নম্বরে রায়াডু, দ্বিতীয়ত বাঁ হাতি পেসার খলিল। ব্র্যাবোর্নে দু'জনের পারফরম্যান্সই স্বস্তি দিচ্ছে বিরাটকে। যদিও ৩ উইকেট নিয়ে নজর কাড়ার ম্যাচে ভর্ৎসনার মুখোমুখিই হতে হল খলিলকে। সোমবার মার্লন স্যামুয়েলসকে আউট করার পর খলিলের আচরণ অশোভন থাকায় তাঁকে সতর্ক করেছেন ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রড। ব্র্যার্বোনে চতুর্থ ম্যাচে ১৪ নম্বর ওভারে স্যামুয়েলসকে ফেরান খলিল। তার পর তাঁর সেলিব্রেশন স্টাইল যথাযথ ছিল না বলেই রিপোর্টে লিখেছেন দুই আম্পায়ার ইয়ান গোল্ড ও অনিল চৌধুরি। সে জন্য আইসিসির ২.৫ ধারা ভাঙার দায়ে অভিযুক্ত হন খলিল। তবে প্রথম অপরাধ বলে শুধু সতর্ক করেই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে তাঁকে।

এক দিকে স্বস্তি থাকলেও অন্য দিকে মহেন্দ্র সিং ধোনির ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে সুনীল মনোহর গাভাসকর মনে করছেন, ধোনির নিশ্চিত ভাবেই খেলা উচিত। গাভাসকরের কথায়, 'বিশ্বকাপে বিরাটের অবশ্যই ধোনিকে প্রয়োজন।' সঙ্গে জুড়ে দিয়েছেন, '৫০ ওভারের ক্রিকেটে ধোনি আর একটু সময় নিয়ে খেলতে পারবে। তা ছাড়া আমরা সবাই জানি, ধোনি ছোট ছোট ফিল্ডিং অ্যাডজাস্টমেন্টগুলো করে। বোলারদের হিন্দিতে পরামর্শ দেয়। ওদের বলে দেয়, কোথায় বল ফেলতে হবে। এগুলো কিন্তু বিরাটের জন্য প্লাস পয়েন্ট।'

বিশ্বকাপ মাথায় থাকলেও কাল বৃহস্পতিবার তিরুবনন্তপুরমে ওয়ান ডে সিরিজ জয়ই বিরাটের আপাতত সবচেয়ে বড় লক্ষ্য।

আরো পড়ুন
  • 113
লোড হচ্ছে ···
আর নেই